সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে ১৬ সরকারি প্রতিষ্ঠানে উড়ছে না জাতীয় পতাকা টাঙ্গাইলে ওয়ালটনের নন স্টপ মিলিয়নিয়ার অফার উপলক্ষে র‌্যালী কালিহাতীতে আওয়ামীলীগ-সিদ্দিকী পরিবার মুখোমুখি টাঙ্গাইলের তিন উপজেলায় মাঠ-ঘাট চষে বেড়াচ্ছেন প্রার্থীরা টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে বজ্রপাতে দুই ভাইয়ের মৃত্যু রংপুরে শুরু হয়েছে শেখ হাসিনা অনুর্ধ্ব-১৫ টি টোয়েন্টি প্রমীলা ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ঘাটাইল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চশমা প্রতীক নিয়ে সাংবাদিক আতিক জনপ্রিয়তায় শীর্ষে ও জনসমর্থনে এগিয়ে ঘাটাইলে সেলাই মেশিন মার্কায় ভোট চাইলেন পৌর মেয়র আব্দুর রশীদ মিয়া টাঙ্গাইলে পুটিয়াজানী বাজারে দোকান ঘর ভাঙ্গচুরের অভিযোগ দেবরের বিরুদ্ধে সিরাজগঞ্জে ২১৬ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ ; কাভার্ড ভ্যান জব্দ সাফল্য অর্জনেও ব্যতীক্রম নয় জমজ দুই বোন,  লাইবা ও লামিয়া দুজনেই পেলেন জিপিএ- ৫
নাগরপুরে ভেঙ্গে পড়েছে নবনির্মিত বিদ্যালয়ের ছাদ

নাগরপুরে ভেঙ্গে পড়েছে নবনির্মিত বিদ্যালয়ের ছাদ

প্রতিদিন প্রতিবেদক নাগরপুর : নিম্ন মানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করায় কাজ শেষ হাওয়ার পূর্বেই ভেঙ্গে পড়েছে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নির্মানাধীন ভবনের ছাদ।

তরিঘড়ি করে সরিয়ে ফেলা হয় ভেঙ্গে পড়া ভবনের নির্মাণ সামগ্রী। আতংকে শিক্ষক-শিক্ষাথী ও অভিভাবকরা।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ঘটনার চার দিন পেরিয়ে গেলেও উপজেলা প্রশাসনের কোন কর্মকর্তা ঘটনাস্থল পরিদর্শন এবং ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কোন প্রকার ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় এলাকাবাসীর মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।

শুক্রবার সকালে নাগরপুর উপজেলার আগতাড়াইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নির্মানাধীন দ্বিতল ভবন ভেঙ্গে পরে। এ ঘটনায় এলাকাবাসী, অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের মাঝে ভীতি সঞ্চাল ও ক্ষোভ বিরাজ করছে।

জানা যায়, (NBIDGPS-1) এর অধীনে আগতাড়াইল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতল ভবন ২৯ লক্ষ ২২ হাজার টাকা ব্যায়ে টেন্ডারের মাধ্যমে নির্মানের শর্তে মেসার্স আমিন ট্রেডার্স ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান নির্মান কাজটি পায়।

সে মোতাবেক ২০১৮ সালের জুন মাসের তিন তারিখে বিদ্যালয়ের দ্বিতল ভবনের কাজ শুরু করেন। নির্মান কাজটি চলতি মার্চ মাসে শেষ হওয়ার কথা ছিল।

এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান দ্বিতল ভবনের এক তৃতীয়াংশের কাজ শেষ হওয়ার পর শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে ভবনের ছাদ ভেঙ্গে পরে।

ঠিকাদারের নির্মাণ শ্রমিকরা তরিঘড়ি করে ভেঙ্গে পড়া ছাদের অংশ সরিয়ে ফেলে।

বিদ্যালয়ের ভবনের ছাদ ভেঙ্গে পড়ার সংবাদ দ্রুত ছড়িয়ে পড়লে সমগ্র এলাকায় ক্ষোভ ও আতঙ্ক বিরাজ করে। উপজেলা প্রকৌশলী শাহীনুর রহমান ভেঙ্গে যাওয়া ওই ভবন পরিদর্শন করেনি বলেও অভিযোগ করেছে এলাকাবাসী।

আগতাড়াইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনের ২য় তলার কাজ প্রায় ৬ মাস যাবৎ ধীরগতিতে চলছে। ঐ ভবনের নির্মাণ কাজ বেশির ভাগ সময় রাতে করা হয় বলেও অভিযোগ রয়েছে।

নির্মাণ কাজে নিয়োজিত থাকা তদারকি কর্মকর্তা (এস.ও) মাইনুল ইসলামের বিরুদ্ধে উক্ত বিদ্যালয়ের কাজ দায় সাড়া ভাবে দেখা শুনা করার অভিযোগ করে এলাকাবাসী।

এছাড়া ঐ ছাদে ভিম না করে শুধু কলামের উপর নিম্ন মানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করে ছাদ ঢালাই করার ফলে উক্ত ছাদ ভেঙ্গে পড়েছে বলে স্থানীয়রা জানান।

সহকারি প্রকৌশলী (এস.ও) মাইনুল ইসলাম জানান, আগতাড়াইল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাদ ভেঙ্গে পড়ার কথা জানতে পেরেছি। কি কারনে ছাদ ভেঙ্গে পরলো তা খতিয়ে দেখবো।

স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি সেলিম রেজা জানান, আগতাড়াইল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতল ভবনের নির্মাণ কাজের শুরু থেকেই নিম্ন মানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করা হয়েছে। আমরা কমিটি এবং গ্রামবাসী বিদ্যালয় ভবন নির্মাণ কাজ শুরুর আগে ভাল করে কাজ করার কথা বললে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের লোকজন বলেন, ইতিপূর্বে উক্ত ভবনের নিচতলা যে ভাবে কঠিন (মজবুত) করে কাজ করেছে আমরা দ্বিতল ভবনের কাজ এতো কঠিন (মজবুত) ভাবে করবো না।

আমরা দ্বিতল ভবনের কাজ নরমাল ভাবেই করে যাবো। সেলিম রেজা আরো বলেন, নিম্ন মানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করায় ভবনের ছাদ ভেঙ্গে পড়েছে বলে মনে হয়।

আগতাড়াইল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতল ভবনের নির্মাণ কাজ পাওয়া ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স আমিন ট্রেডার্সের কর্তৃপক্ষ সুমনের সাথে মুঠোফোনের কয়েক দফায় যোগাযোগের চেষ্টা করে তার সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

উপজেলা প্রকৌশলী মো.শাহীনুর আলমের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি এ ব্যাপারে কোন প্রকার মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়ে বলেন, সব বিষয়ে অফিস প্রধানদের মতাতের প্রয়োজন নাই।

তবে কনেষ্ট্রাকশন কাজের ভুলক্রটি হতেই পারে এটা কোন ব্যাপার না। ভুলক্রটি হলে তা ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান সমাধান করবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840