নিম্নমানের সামগ্রি ব্যবহারে টাঙ্গাইল মাভাবিওপ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে নির্মাণাধীন ছাদ ধ্বসে আহত ২০।।পলাতক ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান

নিম্নমানের সামগ্রি ব্যবহারে টাঙ্গাইল মাভাবিওপ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে নির্মাণাধীন ছাদ ধ্বসে আহত ২০।।পলাতক ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান

প্রতিদিন প্রতিবেদক মাভাবিওপ্রবি : টাঙ্গাইল মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে নির্মাণাধীন ভবনের ছাদ ধসে অনন্ত ২০জন নির্মাণ শ্রমিক আহত হয়েছেন। আহতদের টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদের মধ্যে তিন জনের অবস্থা আশংকা জনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য জরুরি ভিত্তিতে ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়েছে।

উদ্ধার কাজ অব্যাহত রয়েছে। উদ্ধার কাজ শেষ হলে হতাহতের সংখ্যা বাড়তে পারে বলেও পায়ার সার্ভিস কর্মীরা জানান।

তবে আরো অনেক নিখোঁজ রয়েছে এবং নিম্নমানের সামগ্রি দিয়ে ভবনের কাজ করায় ধ্বসে পরেছে বলে জানান হাসপাতালে ভর্তিকৃত আহতরা শ্রমিকরা।

এ ঘটনার পর বিশ্ববিদ্যালয়ে নির্মাণাধীন ভবনের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান নূরানী কন্সট্রাকশনের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা পলাতক রয়েছে।

আহত নির্মাণ শ্রমিকরা হলো, পরিতোষ (২৫), মনির (১৮), ফয়সাল (১৭), জনি আহমেদ (৩৪), রুবেল (২৫), রনি (২৩), আমিনুর (২৫), মইন উদ্দিন (২২), আ. রহমান (২৩), মো. খাদেমুল ইসলাম (২৭), আরিফ (৪৮), রফিকুল (৪০), জহুরুল (৩০), পরিতোষ রায় (৩০), অমল রায় (৩৩), সবুর (২৫), শাকিল (৩০), মুদাফোর (২৭), মঞ্জু (৩১) ও নয়ন (৩০)।

আহতদের অধিকাংশের বাড়ি ময়মনসিংহ ও কিশোরগঞ্জ জেলার বিভিন্ন স্থানে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. মো. সিরাজুল ইসলাম জানান, নূরানী কন্সট্রাকশন নামে একটি কোম্পানী বিশ্ববিদ্যালয়ের ১২তলা মাল্টিপারপাস ভবনের নির্মাণ কাজ করছে।

মঙ্গলবার (১২ মার্চ) ওই ভবনের দ্বিতীয় তলার ছাদ ঢালাইয়ের কাজ চলছিল। রাত ১২টার দিকে হঠাৎ ছাদের পশ্চিম প্রান্তের উত্তর কোণা ভেঙ্গে পড়ে। ধ্বংসস্তুপের নিচ থেকে ফায়ার সার্ভিস এসে ১৮জনকে উদ্ধার করে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠায়।

পরে সেখানে তিনজনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয় এবং বাকী ১৫ জনকে ভর্তি করা হয়। এদের মধ্যে তিনজনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য জরুরি ভিত্তিতে ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়েছে।

টাঙ্গাইল ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক (ডিএডি) আব্দুর রাজ্জাক জানান, যেভাবে ছাদটি ধসে পড়েছে তাতে এস্কেভেটরসহ বিভিন্ন ভারি যন্ত্রপাতি ছাড়া ভেতরে উদ্ধার কাজ চালানো সম্ভব না।

তাছাড়া ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান নূরানী কন্সট্রাকশনের কোন কর্মকর্তা বা কর্মচারীকে পাওয়া যায়নি।

ফলে তাদের কাছ থেকেও সহযোগিতা নিতে পারি নি। আমরা পুলিশসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কাছে এই ধরণের যন্ত্রপাতি চেয়েছি, সেগুলো এলে আবার উদ্ধার কাজ শুরু করতে পারব।

আহতরা জানান, ছাদ তৈরীতে নিম্নমানে রড, খোয়া এবং জমে যাওয়া সিমেন্ট ব্যবহার করা হয়েছে। যার কারনে ভবনটির ছাদ ধ্বসে গেছে। আমাদের অনেক শ্রমিক এখনো নিখোঁজ রয়েছে। হয়তো অনেকে ধ্বসে পরা ছাদের নিচে পরে মারা যেতে পারে।

নিম্নমানে সামগ্রির বিষয়ে আমরা কতৃপক্ষকে জানানোর চেষ্টা করলে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান নূরানী কন্সট্রাকশনের মলিক ও কর্মকর্তরা আমাদের কাজ থেকে ছাটাই করে দেন।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840