সংবাদ শিরোনাম:
বেঁচে ফেরা নাবিক টাঙ্গাইলের রবিউলের কাছে ইউক্রেন এক দুঃস্বপ্নের নাম

বেঁচে ফেরা নাবিক টাঙ্গাইলের রবিউলের কাছে ইউক্রেন এক দুঃস্বপ্নের নাম

বিশেষ প্রতিবেদক: ইউক্রেন এখন আমার কাছে এক দুঃস্বপ্নের নাম। কখনো ভুলতে পারবো না এ ঘটনা। কতটা ভয় আর আতঙ্কে ছিলাম তা শুধু আমিই জানি। প্রতিটা মূহূর্ত কেটেছে জীবিত ফিরবো না লাশ হয়ে দেশে ফিরবো তা নিয়ে। শুধু আল্লাহর কাছে দোয়া করেছি পরিবারের কাছে যেন ভালোভাবে যেতে পারি। আল্লাহর রহমত ও সরকারের আন্তরিক প্রচেষ্টায় অবশেষে প্রাণে বেঁচে গেছি। ফিরে এসেছি প্রিয় জন্মভূমিতে, পরিবারের কাছে। এখন কি যে আনন্দ লাগছে সেটা বলে বোঝাতে পারবো না। কথা গুলো বলছিলেন ইউক্রেন থেকে ফিরে আসা বাংলার সমৃদ্ধি জাহাজের সেকেন্ড ইঞ্জিনিয়ার টাঙ্গাইলের রবিউল আউয়াল।

জানা যায়, টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার লাউহাটী ইউনিয়নের পাহাড়পুর গ্রামের হোসেন আলীর ছেলে রবিউল আউয়াল (৩২)। ৫ ভাইয়ের মধ্যে সবার ছোট রবিউল। তিনি চট্রগ্রামের বাংলাদেশ মেরিন একাডেমিতে লেখাপড়া শেষ করে ২০২১ সালে বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশনে চাকরি নেন।
রবিউল আরো জানায়, ২১ ফেব্রুয়ারি তুরস্ক থেকে জাহাজ নিয়ে ২২ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনের অলভিয়া বন্দরে পৌঁছি। সেখানে ২ মার্চ বিকেলে আমাদের জাহাজে বোমা হামলা হয়। এতে জাহাজে থাকা ২৯ জনের মধ্যে ১ জন মারা যান। হামলার ফলে ইন্টারনেটসহ জাহাজের সকল যোগাযোগ ব্যবস্থা ধ্বংস হয়ে যায়। আমরা একেবারে আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়ি। মনে হয় আর বুঝি বাঁচবো না। শুকনা খাবারই ছিলো একমাত্র অবলম্বন। এদিকে মোবাইলের মাধ্যমে জাহাজের ক্যাপ্টেন ও প্রধান ইঞ্জিনিয়ার শিপিং কর্পোরেশনে যোগাযোগ করতে থাকেন। আমাদের উদ্ধারের জন্য সরকারের কাছে বিভিন্নভাবে যোগাযোগ করি। পরে দূতাবাসের সাহায্যে ৩ মার্চ আমাদেরকে ট্রাক বোটের মাধ্যমে জাহাজ থেকে বন্দরে আনা হয়। ৩ ও ৪ মার্চ সেখানে থাকার পর ৫ মার্চ বাসে করে আমাদেরকে ইউক্রেন সীমান্তে নেওয়া হয়। পরে মলদোভা হয়ে রোমানিয়া আসি। তখন স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলি।

রবিউল আউয়াল আরো বলেন, আল্লাহর দরবারের কোটি শুকরিয়া জানাই। সেইসাথে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, সরকার ও শিপিং কর্পোরেশনের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। পোল্যান্ড এবং রোমানিয়া দূতাবাসের অকল্পনীয় সহযোগিতা সত্যিই প্রশংসনীয়। আমাদের জাহাজে টাঙ্গাইলের ঘাটাইলের আমিনুল ইসলাম নামের একজন শ্রমিকও ছিলেন। যুদ্ধক্ষেত্র থেকে প্রাণে বাঁচার পর পরিবারের সবার সাথে দেখা, এটা যে কতটা আনন্দের সেটা আমিই জানি। কয়েকটা দিন রেস্ট নিয়ে রমজানের ঈদের পর চাকরিতে ফিরবো।

রবিউলের বাবা হোসেন আলী বলেন, আমার বাবার (ছেলে) চিন্তায় স্বাভাবিক ছিলাম না। পরিবারের সবার খাওয়া দাওয়া প্রায় বন্ধ হয়ে গিয়েছিলো। রাতে ঘুম হতো না, অবিরত কান্না করতাম। যদি ছেলেটিকে আর দেখতে না পাই। শুধু আল্লাহকে বলেছি তুমি ওদের সবাইকে বাঁচিয়ে দাও। ছেলে বাসায় ফিরে যখন আমাকে আব্বা বলে ডাক দিলো তখন আমার প্রাণটা শান্ত হলো। আমি সাংবাদিক ও সরকারসহ সবাইকে ধন্যবাদ জানাই।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840