ভিন্ন এক মিলন মেলায় দীপ্তিময় ৯২’ টাঙ্গাইল

ভিন্ন এক মিলন মেলায় দীপ্তিময় ৯২’ টাঙ্গাইল

প্রতিদিন প্রতিবেদক : দেখতে দেখতে বেলা অনেকটা বয়ে গেছে। সে দিনের কৈশর পেরিয়ে, যৌবনের ঢেউ মারিয়ে বয়স এখন শেষ পথে। আলাদা অনুভুতি আর ভিন্ন ভিন্ন আনন্দে এতো বছর পার হলেও বন্ধুদের যে আড্ডা তা কখনোই ভুলার নয়। এত কিছুর পর আবার সেই বন্ধুদের যে মিলন মেলা সেটাতো ভিন্ন আনন্দেরই হবার কথা। এরইধারাবাহিকতায় শুক্রবার টাঙ্গাইল শহরের একটি রেস্টুরেন্টে বসেছিলো আনন্দের এক মিলন মেলা। দীপ্তিময় ৯২’ টাঙ্গাইল বন্ধুদের মেলা। দিনভর গল্প. আড্ডা আর স্মৃতিচারণ। কোন কিছুতেই কমতি ছিলনা। যারা এক সময়ে পড়ালেখার গন্ডি পেরিয়ে কর্মজীবনের নেশায় মত্ত হয়েছিল। তারাই আজ শক্ত হাতে একেকজন একেকটা পরিবারের হাল ধরেছে। কেউ বড় ব্যবসায়ী, কেউ বা সরকারী চাকুরীজীবি আবার কেউ বা চাকুরী করছে বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে উচ্চপদে। মিলনমেলায় সবার পরিচয় পর্বে তেমনটাই ফুটে উঠে। কেউ এক সন্তানের পিতা। কেউ বা আবার একাধিক। কারো সন্তান পড়ছে কলেজে। কারো সন্তান স্কুলের গন্ডিতে। কেউ বিয়ে করেছেন পরিবারের পছন্দে আবার কেউ পরিণয় করে। মনখুলে ব্যাক্তিগত জীবনের এসব তথ্য প্রকাশের ক্ষেত্রে যে কতটা উদার ছিল বন্ধুরা তা না দেখে বিশ্বাস করার উপায় নেই।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে টাঙ্গাইলের এসসএসসি ব্যাচ ৯২’ বন্ধুদের অনেকে মিলে কিছুদিন আগে একটি পেইজে নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ শুরু করে। অল্প কিছুদিনেই পেইজটি ৯২’ ব্যাচের সকলের মাঝে সাড়া ফেলে দেয়। দীর্ঘদিন পরে সেই কৈশরের বন্ধুরা একে একে পুনরায় একই বন্ধনে আবদ্ধ হওয়া শুরু করে। এর ফলে নিজেদের মধ্যে যোগাযোগের দারুন এক মাধ্যম শুরু হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় দীপ্তিময় ৯২’ টাঙ্গাইলের পথচলা শুরু। এসব বন্ধুরা শুক্রবার শহরের পুরাতন বাসষ্ট্যান্ডে অবস্থিত শর্মা হাউজে মিলিত হয়। দিনব্যাপি নানা আয়োজনের মধ্যে ছিল কেক কাটা, পরিচয় পর্ব, আড্ডা, আগামীর পরিকল্পনা ও মধ্যাহ্নভোজ।

এরকম একটি আয়োজনের জন্যে পেইজের এডমিন মাহবুবুর রহমান সুমন, মাহবুবুর রহমান শামীম, আমেরিকা প্রবাসী হাফিজুর রহমান ও হারুনসহ সকলের প্রতি শুভেচ্ছা জানায় উপস্থিত বন্ধুরা। আগামীতে আরো বৃহৎ পরিসরে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে এমন একটি মিলন মেলা আয়োজনের ইচ্ছাও প্রকাশ করে তারা।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840