ভূঞাপুরে যমুনায় অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধে প্রশাসনের হানা

ভূঞাপুরে যমুনায় অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধে প্রশাসনের হানা

বিশেষ প্রতিবেদক: শুকনো মৌসুমে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে যমুনা নদীতে জেগে ওঠা চরাঞ্চলের আবাদি জমির বালুমাটি অবৈধ উত্তোলনে মেতেছে প্রভাবশালী বালুখেকো চক্র। তারা দীর্ঘদিন ধরে যমুনা নদীতে অবাধে নিষিদ্ধ বাংলা ড্রেজার ও চরাঞ্চলে জেগে ওঠা আবাদি জমিতে ভেকু (মাটি কাটার যন্ত্র) বসিয়ে দিন-রাত বালু উত্তোলন ও বিক্রি করছে। এসব বালু উত্তোলন বন্ধে নিয়মিত ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করছেন উপজেলা প্রশাসন। প্রভাবশালী বালুখেকোরা কোন ছাড় পাচ্ছে না। অভিযানে বালুখেকো মূল হোতারা পালিয়ে গেলেও গুণতে হচ্ছে মোটা অংকের অর্থ । তাছাড়া অভিযানে তাদের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলাও দেওয়া হচ্ছে।

গত ডিসেম্বর ও চলতি জানুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধে কমপক্ষে ৮-১০ দিন ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান চালিয়েছে। এতে মোট ৯ লাখ টাকা অর্থদন্ড এবং একটি মামলাও দেওয়া হয়েছে । বৃহস্পতিবার (৫ জানুয়ারি) বিকালে উপজেলার অর্জুনা ইউনিয়নের জগৎপুরা এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৭ লাখ টাকা অর্থদন্ড করা হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান পরিচালনা করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না রহমান জ্যোতি ।

এরআগে উপজেলার গোবিন্দাসী ইউনিয়নের খানুরবাড়ী এলাকায় অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধে অভিযান চালিয়ে ১ লাখ টাকা অর্থদন্ড করে। অভিযান পরিচালনা করেন- উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. বেলাল হোসেন । গত মাসে একই এলাকা থেকে আরও ১ লাখ টাকা অর্থদন্ড করা হয়। বালু উত্তোলন বন্ধে নিয়মিত ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানের কারণে অসাধুবালু ব্যবসায়ীদের মাঝে অর্থদন্ড ও মামলার আতঙ্ক বিরাজ করছে।

অভিযোগ রয়েছে, সরকারি দলের কতিপয় প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় অসাধু বালুখেকোরা ক্ষমতার দাপটে জমি মালিকদের জিম্মি করে শুকনো মৌসুমে অবাধে বালুমাটি উত্তোলন ও বিক্রি করে। অবৈধ বালু উত্তোলন কর্মকান্ড বাধা দিতে গেলে তারা মারধর ও হয়রানির শিকার হয়। বালুখেকোদের ভয়ে কথা বলতে কেউ সাহস পান না। বালু উত্তোলন বন্ধে একাধিকবার লিখিত ও মৌখিক অভিযোগ করেভুক্তভোগীরা ।
এদিকে, বালু উত্তোলনের ফলে নদীর গতিপথ পরিবর্তন হচ্ছে। বর্ষা মৌসুমে ঘরবাড়ি-বসতভিটা, মসজিদ-মন্দির ও রাস্তা-ঘাটসহ নানা স্থাপনা নদী গর্ভে চলে যায়। শুধু তাই নয়, অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ফলে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব এলাকায় প্রস্তাবিত অর্থনৈতিক জোনে বাড়ছে নদীর গভীরতা, ভূঞাপুর-তারাকান্দি আঞ্চলিক মহাসড়কের গাইড বাধ পড়েছেহুমকির মুখে । প্রশাসনের কাছে অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধের দাবি জানায় ভুক্তভোগীরা।

এ ব্যাপারে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না রহমান জ্যোতি জানান, এ উপজেলাটি যমুনা নদী চরাঞ্চল বিধৌত। শুকনো মৌসুমে আবাদি জমির চর জেগে ওঠে। এসব আবাদি জমিতে বালু ব্যবসায়ীরা দীর্ঘদিন ধরে অবৈধভাবে বালু বিক্রি করে আসছে। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ পেয়ে বালু উত্তোলন বন্ধে জেলা প্রশাসক মহোদয় ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহোদয়ের নির্দেশক্রমে নিয়মিত ভ্রাম্যমাণ অভিযান চালানো হচ্ছে এবং অর্থদন্ডসহ অবৈধ বালু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে মামলাও দেওয়া হচ্ছে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. বেলাল হোসেন জানান, ভুক্তভোগীদের অভিযোগের ভিত্তিতে জেলা প্রশাসক মহোদয়ের নির্দেশে গত ডিসেম্বর ও চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে উপজেলার গোবিন্দাসী, নিকরাইল ও অর্জুনা ইউনিয়নের নদী তীরবর্তী এলাকা সরেজমিনে পরিদর্শন করা হয়েছে। পরবর্তীতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের নিয়মিত অভিযান ও পরিচালনা করা হয় । এতে কমপক্ষে ৮ -১০ টি অভিযানে মামলাসহ ৯ লাখ টাকা অর্থদন্ড করা হয়েছে। একইসাথে অবৈধ বালু উত্তোলন থেকে বিরত থাকার শর্তে মুচলেকা নেওয়া হয়েছে । আবাদি জমি কেটে বালু উত্তোলন বন্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840