ভূঞাপুর ও ধনবাড়ীতে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেনি ৩০ শিক্ষার্থী, কেন্দ্রে ভাঙচুর

ভূঞাপুর ও ধনবাড়ীতে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেনি ৩০ শিক্ষার্থী, কেন্দ্রে ভাঙচুর

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে কলেজ কর্তৃপক্ষের অবহেলা ও এক শিক্ষকের প্রতারণার কারণে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারেনি ২২ পরীক্ষার্থী। রোববার (৩০জুন) সকালের পরীক্ষা শুরুর আগে ভূঞাপুরে নিকরাইল শমশের ফকির ডিগ্রি কলেজের ২২ পরীক্ষার্থী বিক্ষুব্ধ হয়ে নিকরাইলের পলশিয়া রানী দীনমনি উচ্চ বিদ্যালয়ে কেন্দ্রে গিয়ে আন্দোলন শুরু ভাঙচুর করতে থাকে। পরে পুলিশের সঙ্গে পরীক্ষার্থীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। পরে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, বিনা কারণে পুলিশের সদস্যরা পরীক্ষার্থীদের মারপিট করেছে। সরেজমিনে দেখ গেছে, পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে না পারায় কেন্দ্রের বাইরে গেটে দাঁড়িয়ে কান্নায় ভেঙে পড়ছেন শিক্ষার্থীরা। এসময় অভিভাবকরাও কেন্দ্রের বাইরে পরীক্ষার্থীদের সান্ত¡না দিচ্ছেন আর দোষীদের বিরুদ্ধে শাস্তিমুলক ব্যবস্থা গ্রহণে জোর দাবি জানাচ্ছেন। জানা গেছে, উপজেলার নিকরাইল শমসের ফকির ডিগ্রি কলেজ কর্তৃপক্ষ এইচএসসি পরীক্ষার জন্য নির্ধারিত টাকার চেয়ে বাড়তি টাকা দাবি করে। এতে অনেক শিক্ষার্থী বাড়তি টাকা দিতে অস্বীকার করে। পরে পরীক্ষার্থীরা ওই কলেজের বাংলা বিভাগের প্রভাষক লোকমান হোসেন এ সুযোগে ২২জন পরীক্ষার্থীর কাছ থেকে ৩হাজার টাকা নেয় ফরম পূরণের জন্য। কিন্তু পরবর্তিতে ওই শিক্ষার্থীদের বোর্ড থেকে কোনো রেজিস্ট্রেশন কার্ড বা প্রবেশপত্র দেওয়া হয়নি শিক্ষার্থীদের। শনিবার (২৯ জুন) ২২জন পরীক্ষার্থী কলেজে গিয়ে প্রবেশপত্র নিতে গেলে তাদের ফরম পূরণ হয়নি বলে জানিয়ে দেওয়া হয়। পরে শিক্ষার্থীরা শিক্ষার্থীদের শিক্ষক লোকমান হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করেও কোনো সমাধান পায়নি। শমসের পরীক্ষা ডিগ্রি কলেজ থেকে নিয়মিত ও অনিয়মিত মিলিয়ে এ পলশিয়া রানী দীনমনি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে এইচএসসি পরীক্ষায় ১৭১ জন অংশগ্রহণ করেছে। এ ঘটনায় প্রবেশপত্র বাতিল হওয়া পরীক্ষার্থীরা সকালে পরীক্ষা শুরুর আগে কেন্দ্রে গিয়ে বিক্ষোভ ও ভাঙচুর করে। পরে কেন্দ্রের দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে পরীক্ষার্থীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। এ সময় সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ সদস্য মোতায়েনের পাশাপাশি প্রশাসনের আশ্বাসের পর পরীক্ষার্থীরা আন্দোলন শেষ করে কেন্দ্র ত্যাগ করে। পরীক্ষার্থীরা জানায়, কলেজ কর্তৃপক্ষের দাবিকৃত ৮ হাজার টাকা দিতে না পারায় ফরম পূরণ করেনি। পরে কলেজের বাংলা প্রভাষক লোকমানের মাধ্যমে ফরম পূরণ করে জালিয়াতির শিকার হয়েছি। টাকা দিয়েও পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারলাম না। আমাদের ভবিষ্যৎ নষ্ট হয়ে যাবে কলেজ কর্তৃপক্ষ ও শিক্ষকের প্রতারণার কারণে। আমরা যেকোন মূল্যে পরীক্ষা দিতে চাই। শমসের ফকির ডিগ্রি কলেজের বাংলা বিভাগের প্রভাষক লোকমান হোসেন বলেন, ওই ২২ শিক্ষার্থীর ফরম পূরণ হয়েছে। সব প্রমাণপত্র আমার কাছে রয়েছে। কিন্তু গতকাল রাতে কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ বোর্ডে ফোন করে ২২জন পরীক্ষার্থীর ফরম বাতিল করেছেন। তবে শমসের ফকির ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. আক্তারুজাজামান জানান, পরীক্ষার্থীরা কলেজে কোনো যোগাযোগ করেনি। অনেক শিক্ষার্থীকে বিনামূল্যে ফরম পূরণ করা হয়েছে। বাড়তি ফি নেওয়া হয়নি। শিক্ষার্থীদের অভিযোগ সত্য না। ভুঞাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আহসান উল্লাহ জানান, পরীক্ষা দিতে না পারা শিক্ষার্থীরা ক্ষুব্ধ হয়ে কেন্দ্রে আন্দোলন করে। পরে কেন্দ্র অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মামুনুর রশীদ জানান, ২২ পরীক্ষার্থী কলেজ কতৃপক্ষের অগোচরে এবং অবৈধভাবে এইচএসসি ফরম পূরণ করা হয়েছে বলে কলেজ অধ্যক্ষ পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন। পরে বোর্ড কর্তৃপক্ষ ওই ২২ পরীক্ষার্থীর ফরম পূরণ বাতিল করায় তারা পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারছে না। শিক্ষার্থীদের অভিযোগ খতিয়ে দেখে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

অপরদিকে, ধনবাড়ীতে বিএম শাখার আট শিক্ষার্থী দিতে পারলো না পরীক্ষা। কলেজ কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা, জাল জালিয়াতি ও অনিয়মের কারণে টাকা পয়সা পরিশোধ ও কলেজ পরীক্ষায় অংশ নিয়েও চলতি এইচএসসি পরীক্ষার প্রথম ফাইনাল দিতে পারলো না বিএম শাখার ৮ শিক্ষার্থী। টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী উপজেলার ভাইঘাট আইডিয়াল ডিগ্রি কলেজের বিএম শাখার শিক্ষার্থী তারা। তবে কলেজ কর্তৃপক্ষ তাদের শিক্ষার্থী মানতে রাজি নয়। এ দিকে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা উপজেলা প্রশাসন, কলেজ কর্তৃপক্ষসহ বিভিন্ন স্থানে গিয়ে অভিযোগ করে কোন সহযোগিতার আশ^াস না পাওয়ায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে তারা। কান্না জড়িত কন্ঠে তারা জাল জালিয়াতির সাথে জড়িত কলেজ সংশ্লিষ্টদের শাস্তি ও পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের দাবি জানিয়েছে। অভিযোগকারী শিক্ষার্থী মধুপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার নাঈম,স্বাধীন, রনি, হামিদ, মুকুলরা জানায়, ২০২৩-২৪ শিক্ষা বর্ষে তারা গত বছর কলেজের বিএম শাখায় ভর্তি হয়। প্রথম বর্ষের ফাইনাল পরীক্ষার ফরম পূরণের টাকা কলেজ করণিক ছানোয়ারের কাছে জমা দেয়। পরীক্ষার প্রস্তুতি শেষ করে কলেজে প্রবেশপত্র সংগ্রহে এসে জানতে পারে তাদের প্রবেশপত্র আসেনি। শনিবার পরীক্ষার আগের দিন আসবে ছানোয়ারের এমন প্রতিশ্রুতিতে তারা সারাদিন অপেক্ষা করে প্রবেশপত্র হাতে না পাওয়ায় পরীক্ষায়ও বসতে পারছে না, শিক্ষা জীবন হুমকির মুখে পড়ছে। এমন অবস্থায় দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হয়ে পড়ে তারা। সহপাঠীরা পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করলেও প্রবেশপত্র না থাকায় রবিবার পরীক্ষা দিতে সর্বশেষ কলেজে গিয়েও পরীক্ষায় বসতে না পেরে অনেকেই কান্নায় ভেঙে পড়ে। কলেজ কর্তৃপক্ষ ও প্রশাসনকে মৌখিকভাবে বিষয়টি জানানো হয়। পরীক্ষা বঞ্চিত শিক্ষার্থীরা বলে- টাকা দেয়ার পরেও কেন আমাদের ফরম পূরণ হলো না। কেন আমাদের সাথে এমন প্রতারণা করা হলো। ঘটনার সাথে জড়িতদের শাস্তিসহ পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জোর দাবি জানাচ্ছি। এদিকে করণিক ছানোয়ারের মোবাইলে বার বার ফোন দিলে মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়। হেড ক্লার্ক আব্দুস সালাম জানান, কাল এবং আজ (রোববার) ছানোয়ার কলেজে আসেননি। তিনি জানান, ধোপাখালী টেকনিক্যাল কলেজ কেন্দ্রে তাদের ১০৪ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষা দিচ্ছে। যারা কলেজে পরীক্ষার বিষয়ে এসেছিল তারা ছাত্র না। আবু সাঈদ নামের ওই কলেজের এক শিক্ষক জানান, প্রশাসন থেকে ছানোয়ারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। তাকে সাসপেন্ড করতে মিটিং করে কলেজ ব্যবস্থা গ্রহণে উদ্যোগ নিবে শিগগির। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান জানান, অভিযোগকারীরা কলেজের ছাত্র না বলে শুনেছি। তবুও কলেজ অধ্যক্ষকে ওই অভিযুক্ত করণিক সহ উক্ত বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার জন্য বলা হয়েছে। কলেজ অধ্যক্ষ মো. আব্দুর রহিম জানান, অভিযোগকারীরা কলেজের রেজিস্ট্রেশনভুক্ত বৈধ শিক্ষার্থী না হওয়ায় তাদের প্রবেশপত্র পাওয়া বা পরীক্ষা দেয়ার কোন সুযোগ নেই।

 

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840