৭১’র চেতনার মধুপুরে আহবায়ক কমিটি গঠন

৭১’র চেতনার মধুপুরে আহবায়ক কমিটি গঠন

প্রতিদিন প্রতিবেদক মধুপুর : টাঙ্গাইলের মধুপুরে ৭১’র চেতনা নামের একটি সংগঠনের আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে।

মোঃ রাকিবুল ইসলাম বাবু  আহবায়ক ও শহিদুল ইসলাম দোয়েল কে সদস্য সচিব করে ১১ সদস্যের আহবায়ক কমিটির অনুমোদন দেয় টাঙ্গাইল জেলা কমিটি।

কমিটির অন্যান্য সদস্যরা হলেন– মোঃমাহবুব আলম,মো: পলাশ আহমেদ, মো: সম্রাট তালুকদার, মো: শিপন আহমেদ, মো: নাজমুল হাসান, মো: সোহান, মো: সিয়াম খান, মো: মিলন খান, মো: কামরুল হাসান।

৭১’র চেতনা সংগঠনের টাঙ্গাইল জেলার আহবায়ক  মোঃ আসাদুজ্জামান সোয়েব ও সদস্য সচিব মোঃ হাফিজ হাসানাত আপেল ৭১’র চেতনা মধুপুর উপজেলা শাখার আহবায়ক কমিটির অনুমোদন দিয়েছেন।

এরআগে টাঙ্গাইল জেলা ৭১’র চেতনা কমিটির অনুমোদন দেওয়া হয়।

৭১’র চেতনা কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ড.বাহাউদ্দিন গোলাপ ও সাধারণ সম্পাদক শবনম জেবীন স্বাক্ষরিত ১১জুন অনুমোদন পত্রে, আসাদুজ্জামান সোয়েব কে আহবায়ক ও হাফিজ হাসনাত আপেল কে সদস্য সচিব করে ১৫ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি রয়েছে।

এ কমিটির অন্যান্য সদস্যরা হলো, রাজিব ভদ্র অপু, রুহুল আমিন, নাজমুল হাসান, মো: হৃদয় আহমেদ, তারিকুল ইসলাম রাশেদ, খন্দকার সিফাত, মুশফিকুর রহমান,

তানভীর আহমেদ জয়, গোবিন্দ চক্রবর্তী, তানভীর আহমেদ সজন, দোদুল চক্রবর্তী, রোমান আউয়াল ও রেদুয়ান মাসুদ।

আরো থবর পড়ুন করোনাকালে ঘরবন্দী নানান পেশার মানুষ অবসর সময়ে ঘুড়ি উড়িয়ে অনেকেই শৈশবে ফেরার চেষ্টা করছেন মধুপুর উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম অঞ্চলের তরুণ প্রজন্মসহ বিভিন্ন বয়সি মানুষ।

শিশু-কিশোর থেকে শুরু করে বিভিন্ন বয়সের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ অনেকেই একসঙ্গে খোলা মাঠ, বিল, ঝীল কিংবা বাড়ির ছাদে বিভিন্ন প্রজাতির ঘুড়ি উড়াতে দেখা যায়।

এরই ধারাবাহিকতায় মধুপুর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী কুড়ালিয়া গ্রামের যুবসমাজের উদ্যোগে শনিবার (২৭ জুন) সকালে সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করে এবং প্রত্যেক প্রতিযোগির মুখে মাস্ক পড়া বাধ্যতামুলক করে এই ঘুড়ি উড়ানো প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।

টাঙ্গাইল জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে উৎসুক লোকজন এই ঘুড়ি প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহন করেন।  

টাঙ্গাইল শহর হতে শুরু করে, জেলার প্রায় সব উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম অঞ্চলে ঘুরে দেখা যায়, বিকেল হলেই যেনো মুক্ত আকাশে চলছে ঘুড়ির মেলা। আকাশে বাতাসের সাথে তাল মিলিয়ে উড়ছে নানা রঙের নানা ধরনের ঘুড়ি।

বিভিন্ন বাসাবাড়ির ছাদেও চলে ঘুড়ি উড়ানো প্রতিযোগিতা। করোনাকালীন অবসাদ দূর করার এক সুস্থ বিনোদন।ঘুড়ি উড়ানো অনেক প্রতিযোগি বলেন, শৈশবে বন্ধুদের নিয়ে বর্ষার বিকেলে রং বাহারি ঘুড়ি উৎ্সবে মেতে উঠতাম।

একেকটা ঘুড়ির ভিন্ন ভিন্ন নাম রাখতাম। কখনো কখনো ইচ্ছে করেই একটি ঘুড়ির সুতা দিয়ে অন্যটির সুতা কেটে আনন্দে মেতে উঠতাম। কিন্তু যান্ত্রিকতা আর কর্মজীবন আমাদের কাছ থেকে শৈশবের সব কিছু কেড়ে নিয়েছে।

করোনা সংক্রমণ এড়াতে কলেজ বন্ধ রয়েছে। তাই এ সুযোগে শৈশবের সেই পুরোনো স্মৃতিতে ক্ষণিকের জন্য ফিরে যাওয়ার চেষ্টা করছি।

যদিও পুরোনো সেই বন্ধুরা এখন আর পাশে নেই। করোনার অবসরে বর্ষার গগনে রঙিন ঘুড়ি উড়িয়ে সময় পার করতে দেখা গেছে শিশু, কিশোর, যুবক ও অনেক মধ্যবয়সীদেরকেও।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840