সংবাদ শিরোনাম:
নাগরপুরে জুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুুয়াড়ীসহ গ্রেফতার ১৫ টাঙ্গাইলে ফেনসিডিল ও নগদ অর্থসহ গ্রেফতার এক অবৈধ ড্রেজিংয়ের খেসারত ভেস্তে যাচ্ছে টাঙ্গাইল-তোরাপগঞ্জ সড়কটি মধুপুরে সুইট ফ্লাগ চাষ করে স্বাবলম্ভী মহিউদ্দিন টাঙ্গাইলে নারী ক্ষমতায়ন কর্মসূচি অর্জন কর্মশালা অনুষ্ঠিত ভূঞাপুরে এমপি ছোট মনিরের করোনা মুক্তি কামনায় দোয়া টাঙ্গাইলে বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্মচারী পরিষদের সম্মেলন অনুষ্ঠিত ঘারিন্দা ইউনিয়নে নৌকার মাঝি হলেন তোফায়েল আহমেদ মির্জাপুরে স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রস্তুতি কমিটি গঠন অধ্যক্ষ শাহাদতের হোসেন খানের আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল
ঘাটাইল গজারি বনে অবৈধ সিসা তৈরির কারখানা

ঘাটাইল গজারি বনে অবৈধ সিসা তৈরির কারখানা

রবিন তালুকদার : টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার গজারি বনের ভেতরে গড়ে উঠেছে অবৈধ সিসা তৈরির কারখানা।

উপজেলার ধলাপাড়া ইউনিয়নের দক্ষিণ আশারিয়া চালায় অবৈধভাবে গড়ে উঠা ক্ষতিকারক এ সিসা তৈরি কারাখানা নিয়ে এলাকার জনমানুষের মনে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

সরেজমিন পরিদর্শনে এলাকাবাসী জানায়, ঘাটাইল উপজেলার ধলাপাড়া ইউনিয়নের দক্ষিণ আশারিয়া চালা গ্রামে মনসুরের গজারি বাগানে পুরনো ব্যাটারি থেকে তৈরি করা হচ্ছে এই সিসা।

গাইবান্ধা থেকে আসা ১৫ জন শ্রমিক সারাদিন বিভিন্ন জায়গা থেকে পুরাতন ব্যাটারি সংগ্রহ করে এনে রাতের আঁধারে তা বের করে ভোর হওয়ার আগেই গাড়ীতে করে অন্য জায়গায় নিয়ে যাওয়া হয়।

গজারির বাগানে ক্ষতিকারক এ সিসা তৈরির কারখানা গড়ে উঠায় মানব দেহ, গবাদি পশু ও গাছপালার ব্যাপক ক্ষতি-সাধিত হচ্ছে। পরিবেশের উপরও পড়ছে বিরূপ প্রভাব, দেখা দিচ্ছে নানা ধরনের রোগ বালাই।

চিকিৎসকরা বলছেন, এ ধরনের পদার্থ মানুষের শ্বাসকষ্ট, হৃদরোগ ও ক্যান্সারের মতো রোগের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক শ্রমিক জানান, সিসা চকচক করে তবে দিনের বেলা সিসা ও বর্জ্য চেনা যায় না। এজন্যই রাতে সিসা গলানো হয়। সিসা ফ্যাক্টরিগুলো সারা দিন বন্ধ থাকে মধ্যরাতে গাড়িতে করে মালামাল এনে কাজ শুরু করা হয়। আবার ভোর হওয়ার আগেই কাজ শেষ হয়ে যায়।

সিসা তৈরির সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিরা জানান, রাতে কাজ করার সময় আমাদের শ্বাস নিতে অনেক কষ্ট হয়।

পরিত্যক্ত ব্যাটারির কোষগুলো সিমেন্টের মতো জমাট বেঁধে থাকে। চুলি­র মধ্যে অ্যাসিড-মিশ্রিত জমাট বাঁধা বর্জ্য সাজানো হয়।

পরে কাঠ ও কয়লা দিয়ে আগুন ধরিয়ে দিয়ে একটি পাম্পের মাধ্যমে বৈদ্যুতিক পাখা দিয়ে প্রচন্ড বেগে বাতাস দেওয়া হয়। কাঠ ও কয়লা পুড়ে একটি আগুনের কুন্ডলীর সৃষ্টি হয়ে সিসা পুড়ে তরল হয়ে যায়।

এরপর একটি লম্বা চামচ দিয়ে বর্জ্য সরিয়ে সিসা লোহার তৈরি কড়াইতে রাখা হয় অপরদিকে সিসা তৈরীর সময় ঘন ধূসর ধোঁয়া চিমনি দিয়ে বের হয়ে যায়।

আশারিয়া চালা গ্রামের বাসিন্দা মোস্তফা কাজী জানান, গজারি বনের ভিতর কাপড় দিয়ে প্রাচীর-বেষ্টিত একটি জায়গায় গর্ত করে মাটির চুলার মতো চুলি­ বানানো হয়েছে। সেখানে কাজ করছে ডজণখানেক শ্রমিক। প্রতিবাদ করলে বলে আমাদের অনুমতি আছে।

মোস্তফা কাজী আরও জানান, সিসা ফ্যাক্টরির কারণে গাছপালার পাতা বিবর্ণ ও ফ্যাকাসে হয়ে যাচ্ছে। ফসলের ক্ষতি ও গবাদি পশু প্রাণহানি ঘটতে পারে। সিসা উচ্চ তাপমাত্রায় গলানোর সময় সহযোগী হিসেবে কার্বন মনোক্সাইড, কার্বন ডাই অক্সাইড, সালফার ডাই অক্সাইডসহ বিভিন্ন ক্ষতিকারক যৌগ উৎপাদিত হয় এবং তা দ্রুত বাতাসে সঙ্গে চারদিকে ছড়ায়। এতে পরিবেশ দূষিত হচ্ছে, শ্বাসকষ্ট, হৃদরোগ দেখা দেয়ার সম্ভাবনা বেড়েছে কয়েকগুন।

ধলাপড়া বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান জানান, আমি বিষয়টি শুনেছি এদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840