সংবাদ শিরোনাম:
সাফ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপে নেপালের মাটিতে কৃষ্ণা রানীর দুই গোল

সাফ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপে নেপালের মাটিতে কৃষ্ণা রানীর দুই গোল

বিশেষ প্রতিবেদক: সাফ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপে শিরোপা জিতে সারা দেশের মানুষ এখন আনন্দে ভাসছে। ফাইনালে নেপালের মাটিতে স্বাগতিকদের হারিয়ে বাংলাদেশের মেয়েদের এ সাফল্য খুলে দিয়েছে ফুটবলের নতুন দুয়ার। তিন গোলের মধ্যে দুটি গোলই করেছেন কৃষ্ণা রানী সরকার। সেই আনন্দ ছুঁয়ে গেছে কৃষ্ণার বাড়িতে, টাঙ্গাইলের গোপালপুরের উত্তর পাথালিয়ায় গ্রামে। কৃষ্ণার গ্রামের বাড়িতে বিদ্যুৎ না থাকায় তাঁর মা নমিতা রানী সরকার মেয়ের খেলা দেখতে পারেননি। বাবা খেলা দেখেছেন অন্য গ্রামে গিয়ে। আর ভাই পলাশ সারা দিন উপবাস করেছিলেন বোনের ভালো খেলার জন্য।

কৃষ্ণার ছোট ভাই পলাশ পড়েন ঢাকায় গ্রীন ইউনিভার্সিটিতে। প্রথম বর্ষের এই ছাত্র বলেছেন, ‘দিদির খেলার জন্য সারা দিন উপবাসের ব্রত করেছিলাম। জয়ের পর দিদির সঙ্গে কথা বলে তারপর খেয়েছি। দিদি টেনশনে ছিল। আমি তাকে সকালে বলেছি, তুমি টেনশন না করে ভগবানের নাম নিয়ে তোমার সেরা খেলাটা খেলার চেষ্টা কোরো। ঈশ্বর আমার কথা রেখেছেন। এই আনন্দ কাউকে বলে বোঝাতে পারব না।’ কৃষ্ণার মা নমিতা রানী সরকার আফসোস করেন, ‘বিদ্যুৎ না থাকায় খেলা দেখতে পারিনি। খেলা শেষ হওয়ার পর প্রতিবেশীরা বাড়িতে এসে জয়ের কথা জানায়। আমার ছেলেও মোবাইল ফোনে বলেছে। আমি কৃষ্ণাসহ ওদের দলের সবার জন্য দেশবাসীর কাছে আশীর্বাদ চাই।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমার মেয়ে যখন নতুন নতুন খেলতে যেত, তখন আমাদের অনেক কটুকথা সহ্য করতে হয়েছে। তবে এখন মেয়ের সাফল্যে ভালো লাগে। যারা একসময় সমালোচনা করত তারাই এখন প্রশংসা করে।’ কৃষ্ণার বাবা বাসুদেব সরকার বলেন, ‘বাড়িতে বিদ্যুৎ না থাকায় আমি পাশের গ্রামে গিয়ে খেলা দেখেছি। আমার অনেক ভালো লেগেছে। এলাকার মানুষও খুব উপভোগ করেছে। কৃষ্ণা যেন দেশের জন্য আরো গৌরব বয়ে আনে সেই আশীর্বাদ চাই।’

গোপালপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পারভেজ মল্লিক কৃষ্ণাকে সংবর্ধনা দেওয়ার কথা জানিয়ে বলেছেন, ‘কৃষ্ণা শুধু গোপালপুর কিংবা টাঙ্গাইল জেলার নয়, সারা দেশের গর্ব। বঙ্গমাতা ফুটবল টুর্নামেন্টের মাধ্যমে তার উত্থান শুরু। দেশে ফেরার পর আমরা ওকে বড় করে একটি সংবর্ধনা দেব। কৃষ্ণার মাকে কিছুদিন আগে রত্নাগর্ভা সম্মাননা দিয়েছি।’

টাঙ্গাইলের গোপালপুর ভূঞাপুর আসনের সংসদ সদস্য তানভীর হাসান ছোট মনির বলেন, কৃষ্ণা দরিদ্র পরিবারের মেয়ে। ওর অর্জনে আমরা পুরো দেশের মানুষ আজ গর্বিত। প্রত্যন্ত এলাকা থেকে আজ জাতীয় তারকায় পরিণত হয়েছে কৃষ্ণা। ওর সাফল্যকে সম্মান জানাই।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840