গোপালপুরে ইউপি নির্বাচনে আ’লীগের বিদ্রোহী ৭ নাঙ্গলের প্রার্থী ১

গোপালপুরে ইউপি নির্বাচনে আ’লীগের বিদ্রোহী ৭ নাঙ্গলের প্রার্থী ১

টাঙ্গাইলের গোপালপুরে ষষ্ঠ ধাপের আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের প্রতিদ্বন্দ্বি হিসেবে অংশ গ্রহণ করছেন আওয়ামী লীগ। এ যেন ঘরের শত্রু বিভীষণ। উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ ৫ জনকে দলীয় মনোনয়ন দিয়েছে। প্রতিটি ইউনিয়নেই রয়েছেন নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থীসহ স্বতন্ত্র প্রার্থী।

মির্জাপুর ইউনিয়নে নৌকার মাঝি হয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মো: রফিকুল ইসলাম লাভলু মাস্টার। আর এ ইউনিয়নে মনোনয়ন বঞ্চিত হয়ে বিদ্রোহী হয়ে আনারস প্রতীকে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মোঃ আবু ফারুক মিঞা। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে চশমা প্রতীকে মাঠে রয়েছেন মোখলেছ।

আলমনগর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয়েছে উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মোঃ আব্দুল মোমেনকে। মনোনয়ন বঞ্চিত হয়ে এখানে বিদ্রোহী হিসেবে আনারস প্রতীকে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর বিষয়ক সম্পাদক মোঃ মফিজুর রহমান লুৎফর। চশমা প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করছেন মোহাম্মদ এহসানুল হক চৌধুরী।

হাদিরা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের দলীয় টিকিট দেয়া হয়েছে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রয়াত আমিনুল ইসলাম নিক্সনের স্ত্রী বিলকিছ জাহানকে। এখানে মনোনয়ন বঞ্চিত হয়ে বিদ্রোহী হিসেবে আনারস প্রতীকে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক সেলিম আজাদ এবং ঘোড়া প্রতীকে প্রয়াত চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা আবুল কাশেমের ছেলে আলমগীর। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে চশমা মার্কায় আছেন মোঃ আবুবকর সিদ্দিক।

নগদাশিমলা ইউনিয়নে দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মোঃ হোসেন আলী। বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে আনারস মার্কায় লড়ছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মোঃ গোলাম মোস্তফা আঙুর। লাঙ্গল প্রতীকে আছেন খঃ শহীদুল আলম।

ধোপাকান্দি ইউনিয়নে দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক শহীদ আবু সাঈদের বড় ভাই মোঃ সিরাজুল ইসলাম। মনোনয়ন বঞ্চিত হয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মোঃ আঃ হাই আনারস এবং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মোঃ আনোয়ার হোসেন ঘোড়া প্রতীকে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করছেন।

জানা গেছে, এসব ইউনিয়নের নেতাকর্মীরা দ্বিধাবিভক্ত হয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনে কাজ করছেন। এতে আওয়ামী লীগের লোকজনই আওয়ামী লীগের শত্রু হয়ে দাঁড়িয়েছে। ফলে সকল ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থী থাকায় আওয়ামী লীগের নৌকার প্রার্থীরা অনেকটা চাপে রয়েছেন।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম তালুকদার সুরুজ জানান, বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে যারা এখনও অটল রয়েছেন তাদেরকে আমরা নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করতে অনুরোধ করছি। আমাদের অনুরোধে সাড়া দিয়ে যদি নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করে তবে ভালো। আর যদি আমাদের অনুরোধ উপেক্ষিত হয় তবে সেন্ট্রালের নির্দেশনা অনুযায়ী আমরা তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য হবো।

গোপালপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ইউনুছ ইসলাম তালুকদার জানান, নৌকা জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতীক। দলীয় প্রতীক। আওয়ামীলীগ করবেন আর নির্বাচনে নৌকার বিরুদ্ধে অবস্থান নেবেন এমন নেতাকর্মীদের ছাড় দেয়া হবেনা। তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উল্লেখ্য, আগামী ৩১ জানুয়ারি ইলেকট্রনিক্স ভোটিং মেশিন (ইভিএম) এর মাধ্যমে উপজেলার এ ৫টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840