টাঙ্গাইল সেবা ক্লিনিকে ভূল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু সহ নানা অভিযোগ! প্রতিবাদ করলে জীবননাশের হুমকী

টাঙ্গাইল সেবা ক্লিনিকে ভূল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু সহ নানা অভিযোগ! প্রতিবাদ করলে জীবননাশের হুমকী

প্রতিদিন প্রতিবেদক : টাঙ্গাইল সেবা ক্লিনিকে প্রতিনিয়ত ভূল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু সহ নানা অভিযোগ রয়েছে।প্রতিবাদ করলে রোগী ও অভিযোগকারীর পরিবারকে জীবননাশের হুমকী প্রদান করে আসছেন ক্লিনিকের মালিক।

যে কারণে চিকিৎসক রোগী ও তাদের আত্নীয় স্বজনদের সাথে একের পর এক অন্যায় করে পার পেয়ে যাচ্ছেন।

আর প্রাণ হারাচ্ছে শিশু থেকে শুরু করে বিভিন্ন বয়সের নারী-পুরুষ।

এ ব্যাপারে ক্লিনিক সহ মালিকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রশাসনকে অনুরোধ জানিয়েছেন ভূক্তভোগী সহ বিভিন্ন পর্যায়ের সাধারণ মানুষ।

বুধবার (১৫ মে) বিকেলে টাঙ্গাইল শহরের পুরাতন বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন ইতিপূর্বে বিতর্কিত সেবা ক্লিনিক এন্ড হসপিটালের ভুল অপারেশন ও চিকিৎসকের দায়িত্বে অবহেলায় তাসলিমা আক্তার (২৬) নামের এক মহিলা রোগির মৃত্যু হয়েছে। বিষয়টি ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ ধামাচাপা দেয়ার জন্য নিহতের স্বজনদের বিভিন্ন ভাবে হুমকি দিচ্ছেন।

ক্লিনিক রেজিষ্ট্রার সূত্রে জানা যায়, বুধবার (১৫ মে) বিকেলে নাগরপুর উপজেলার বেকরা মশুরিয়া গ্রামের আরিফ হোসেনের স্ত্রী তাসলিমা আক্তারকে টনসিল অপারেশনের জন্য চিকিৎসক আনোয়ারুল হকের তত্ত্বাবধানে ওই ক্লিনিকে ভর্তি করেন। তার ভর্তি রেজিঃ নং-৪৩, কেবিন নং-৩০৫/৬।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায় রোগীর প্রয়োজনীয় পরীক্ষাদি না করে রোগীকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে গেলে রোগীর ব্লাড প্রেসার ও সুগারের মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় অপারেশনের অনুপযোগী হয়ে পড়ে।

তবুও অর্থলিপ্সু চিকিৎসক তার চিকিৎসা না দিয়ে তড়িঘরি করে অপারেশন সম্পন্ন করে। অপারেশনের পর রোগী আস্তে আস্তে নিস্তেজ হয়ে পড়ে। অবস্থা বেগতিক দেখে আইনি জটিলতা এড়াতে চিকিৎসক ও ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের যোগসাজসে নিজস্ব লোকজন ও এম্বুলেন্স সহ ছাড়পত্র দিয়ে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করে।

খবর পেয়ে রোগির স্বজনরা এনাম মেডিকেলে গেলে কর্তৃপক্ষ তাদের বলে রোগী নিবিড় পর্যবেক্ষনে রয়েছে। কিছুক্ষন পর তাদের রোগীকে মৃত বলে ঘোষনা করে।

রোগীর স্বামী আরিফ হোসেন জানান, আমি পুলিশে কর্মরত আছি। কোন আইনি জটিলতায় জড়াতে চাইনা। তবে এর উপযুক্ত বিচার চাই।

এ বিষয়ে নাক, কান, গলা বিশেষজ্ঞ ডা. আনোয়ারুল হক জানান, আমার বাবা অসুস্থ থাকায় আমি মানুষিকভাবে বিপর্যস্ত তবুও আমার অপারেশনে কোন ভুল ছিলনা। আমি অপারেশন সাকসেস করেছি। তবে কেন মারা গেল এ বিষয়ে তিনি ক্লিনিক কতৃপক্লে সাথে কথা বলতে বলেন।

তবে টাঙ্গাইলের বিভিন্ন চিকিৎসক সূত্রে জানা যায়, তিনি কোন প্রকার সার্জারী বিশেষজ্ঞ নন। তার পরও তিনি অপারেশন করেন। এ বিষয়ে
ডা. আনোয়ারুল হক-এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন সার্জারী করা যথেষ্ট অনুমোদনের কাগজ পত্র তার রয়েছে।

অন্যদিকে, অজ্ঞান ডা. রফিকুল ইসলাম জানান, অপারেশন থিয়েটারে নেয়ার পর রোগীর রক্তচাপ ও সুগার বেড়ে গেলে তাকে ইনসুলিন দেয়া হয়।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, সেবা ক্লিনিকের মালিক লায়ন শিবলি সাদিক টাঙ্গাইল জেলা ক্লিনিক মালিক এসোসিয়েশনের সভাপতি ও দেলদুয়ার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক।

রাজনৈতিক ও ক্লিনিক এসোসিয়েশনের নেতা হওয়ার সুবাদে এ ক্লিনিকে একের পর এক ভুল চিকিৎসা ও দায়িত্বহীনতার কারণে অসংখ্যা রোগী মারা যাচ্ছে।

তথাপিও ওই মালিক প্রভাব বিস্তার করে প্রত্যেকটা ঘটনাকে সুকৌশলে একের পর এক ধামা চাপা দিতে সক্ষম হন। কেউ প্রতিবাদ করলে তাকে মিথ্যা মামলার ভয় দেখায়।

লায়ন শিবলি সাদিকের সাথে বার বার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।

সদর থানা যুবলীগ নেতা খন্দকার সজীব রহমান জানান, প্রায় এক বছর পূবের্ তার স্ত্রীকে সিজার করার জন্য সেবা ক্লিনিকে ভতির্ করেন।সেখানে কোন প্রকার সার্জারি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ছাড়াই সিজার সম্পন্ন হলেও তার স্ত্রীর মূত্রথলী কেটে ফেলেন।

পরে তার স্ত্রী সুস্থ্ না হওয়ায় তিনি জোর পূর্বক সেবা ক্লিনিক থেকে তার স্ত্রীর রেফার নিয়ে ঢাকা স্কয়ার সহ বিভিন্ন হাসপাতালে দীর্ঘ প্রায় আড়াই মাস চিকিৎসা করানোর পর তার স্ত্রী সুস্থ্ হন।

পরে তিনি এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের উদ্যোগ নিলে ক্লিনিক মালিক শিবলী সাদিক সহ অন্যান্য প্রভাবশালী আওয়ামীলীগ নেতারা বসে তার সাথে সমঝোতা করেন বলেও তিনি জানান।

অপর এক রোগী ছালমা বেগম জানান, সম্প্রতি গত প্রায় ১৫দিন পূবের্ তিনি চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী সেবা ক্লিনিকে খালি পেটে বিভিন্ন পরীক্ষা করতে যান।

সেখানে পরীক্ষায় তিনি কয়েক দিন বেঁচে থাকবেন বলে রিপোর্ট দেয়া হয়। পরে তিনি ঢাকা ক্লিনিকের এক চিকিৎসককে পরীক্ষার কাগজপত্র দেখালে তিনি তাৎক্ষণিক সেবা ক্লিনিকের দায়িত্বে থাকা ম্যানেজারকে জানান।

পরে তারা তারাহুড়া করে ছালমা বেগমের সকল কাগজপত্র নিয়ে বদলিয়ে সঠিক করে অন্য কাগজ পত্র দিয়ে দেন। এ বিষয়ে তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানান।

এ রকম অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে সেবা ক্লিনিকের চিকিৎসক ও মালিকের বিরুদ্ধে।

অপেক্ষায় থাকুন বিস্তারিত আসছে………….

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840